1. ashik@amaderbanglarsangbad.com : Staf Reporter : Staf Reporter
  2. akhikbd@amaderbanglarsangbad.com : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. babul6568@gmail.com : অনলাইন ডেক্স : অনলাইন ডেক্স
  4. admin@amaderbanglarsangbad.com : belal :
  5. sv.e.t.a.m.ahovits.k.aya.8.2@gmail.com : danniellearchdal :
  6. sv.e.ta.m.ah.ov.i.tsk.a.y.a82@gmail.com : kimberleybogan9 :
  7. lima@webcodelist.com : Khadizatul kobra Lima : Khadizatul kobra Lima
  8. rkp.jahan@gmail.com : Staf Reporter : Staf Reporter
  9. nimushamim46@gmail.com : Shamim Nimu : Shamim Nimu
  10. abc@solarzonebd.com : Staf Reporter : Staf Reporter
  11. tahershaghata@gmail.com : Abu Taher : Abu Taher
জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে চাল চুরির অভিযোগটি সাংবাদিক হাসান করেনি-এসিল্যান্ড পরশুরাম - আমাদের বাংলার সংবাদ




জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে চাল চুরির অভিযোগটি সাংবাদিক হাসান করেনি-এসিল্যান্ড পরশুরাম

  • সংবাদ সময় : Saturday, 2 May, 2020
  • ৫৯৫ বার দেখা হয়েছে

শাহাদাত হোসাইন : কি ঘটেছিল সেদিন। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চেয়েছিলাম জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে চাল চুরির অভিযোগ পেয়ে তল্লাশি চালানো নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও পরশুরামের সহকারী কমিশনার (ভূমি) নু এমং মারমা মং-এর কাছে। ঘটনার বিশদ তথ্য উপাত্ত দিতে না পারলেও তার বক্তব্য ছিল এমন” জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে চাল চুরির অভিযোগটি সাংবাদিক হাসান করেনি।

এক জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে এক ব্যক্তির অভিযোগ ছিল, পরশুরাম কলেজ রোড সংলগ্ন মমিন মিয়ার বাড়িতে সরকারি ত্রাণের বস্তা, বস্তা চাল জমা করে রাখা হয়েছে।

 

অভিযোগের ভিত্তিতে ২৮ এপ্রিল বুধবার সকাল ১১টা থেকে ১২টার মধ্যে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে আমি (নু এমং মারমা মং), পিআইও, পরশুরাম থানা পুলিশের একটি দল ও স্থানীয় সাংবাদিকদের নিয়ে তল্লাশি চালাই। এসময় চালের বস্তা রাখা বাসাটি তালাবদ্ধ ছিল। পরে ছাত্রলীগের আহ্বায়ক পরিচয়ে একজন তালা খুলে দেয়।

 

এসময় রুমের ভিতর ৭০-৮০ বস্তা চাল ও স্টারলাইনের কিছু উপহার সামগ্রি পাওয়া যায়। উপস্থিত ব্যক্তিরা জানায়, চালগুলো পরশুরাম পৌর মেয়র সাজেলের। এসময় তারা চালের বস্তাগুলো সাজেলের ব্যক্তিগত টাকায় কেনা দাবী করে রশিদ প্রদর্শন করে। কিন্তু এসময়ের মধ্যে চালের ব্যাপারে সাজেল কোন রেসপন্স করেনি।

তবুও আমরা স্বচ্ছতা যাচাই করে নিশ্চিত হয়ে স্থান ত্যাগ করি। ” এ ঘটনায় বিকালে বিক্ষুব্ধ সাজেল বাদী হয়ে পরশুরাম থানায় জিডি করে।

এতে কোন আসামীর নাম উল্লেখ না থাকলেও অতি উৎসাহী পরশুরাম থানার ওসি শওকত হোসেন সাংবাদিক হাসানকে আটক করিয়ে হাতকড়া পরিয়ে থানায় নিয়ে যায়।

এদিকে ১ মে শুক্রবার বিকালে হাসান ও আরেক যুবককে আটকের পর প্রশাসনকে ভুল তথ্য দেয়ার অভিযোগে পরশুরামের পিআইও বাদী হয়ে বাংলাদেশ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা আইন ২০১২ এর ৩৮ ধারা মতে থানায় মামলা দায়ের করে।

মুহুর্তে বিষয়টি ভাইরাল হলে ফেনী জেলায় কর্মরত মূলধারার সাংবাদিকরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। ফেনী প্রেস ক্লাবের সুযোগ্য সভাপতি জসিম মাহমুদ ফোন করেন জেলা প্রশাসক ও পরশুরামের ইউএনওর কাছে আর আমি ফোন করি পুলিশ সুপারের কাছে। তারা ৩ জনই হাসানকে ছেড়ে দেয়ার ব্যাপারে আশ্বস্ত করেন।

এ পোস্টটি যখন লিখছি তখন হাসান মুক্ত। তবুও একথা বলতে চাই, অতি উৎসাহি পরশুরাম থানার ওসিকে অপসারণ করা হোক।

 

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী।  আপনার অথবা পরিবারের জন্মদিনের শুভেচ্ছা শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, tahershaghata@gmail.com ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন আমাদের  বাংলার সংবাদ এর  ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ