1. ashik@amaderbanglarsangbad.com : Staf Reporter : Staf Reporter
  2. akhikbd@amaderbanglarsangbad.com : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. babul6568@gmail.com : অনলাইন ডেক্স : অনলাইন ডেক্স
  4. admin@amaderbanglarsangbad.com : belal :
  5. sv.e.t.a.m.ahovits.k.aya.8.2@gmail.com : danniellearchdal :
  6. lima@webcodelist.com : Khadizatul kobra Lima : Khadizatul kobra Lima
  7. rkp.jahan@gmail.com : Staf Reporter : Staf Reporter
  8. abc@solarzonebd.com : Staf Reporter : Staf Reporter
  9. tahershaghata@gmail.com : Abu Taher : Abu Taher
শুধু টিউশন ফি নেওয়ার নির্দেশ স্কুল-কলেজকে




শুধু টিউশন ফি নেওয়ার নির্দেশ স্কুল-কলেজকে

  • সংবাদ সময় : Thursday, 19 November, 2020
  • ১৭ বার দেখা হয়েছে
শুধু টিউশন ফি নেওয়ার নির্দেশ স্কুল-কলেজকে

করোনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও টিউশন ফি পুরোপুরি পরিশোধ করতে হবে শিক্ষার্থীদের। তবে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অ্যাসাইনমেন্ট, টিফিন, পুনরায় ভর্তি, গ্রন্থাগার, বিজ্ঞানাগার, ম্যাগাজিন ও উন্নয়ন বাবদ কোনো ফি নিতে পারবে না বা নিলেও তা ফেরত দিতে হবে প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষকে। এমন বিষয় যুক্ত করে টিউশন ফি সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করেছে সরকার।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের স্বাক্ষরে এ নির্দেশনা গতকাল বুধবার (১৮ নভেম্বর) বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনা সংক্রমণের কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ আছে। সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত হয়েছে, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতাধীন বেসরকারি স্কুল-কলেজগুলো (এমপিওভুক্ত ও এমপিওবিহীন) শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে শুধু টিউশন ফি নিতে পারবে। কিন্তু অ্যাসাইনমেন্ট, টিফিন, পুনরায় ভর্তি, গ্রন্থাগার, বিজ্ঞানাগার, ম্যাগাজিন ও উন্নয়নবাবদ কোনো ফি নেওয়া যাবে না। কেউ এ সংক্রান্ত অর্থ আদায় করলে তা ফেরত দেবে অথবা তা টিউশন ফির সঙ্গে সমন্বয় করবে। তবে যদি কোনও অভিভাবক চরম আর্থিক সংকটে থাকেন, তাহলে ঐ শিক্ষার্থীর টিউশন ফির বিষয়টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ বিশেষ বিবেচনায় নেবেন। তবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ফের আগের মতো সব ধরনের যৌক্তিক ফি নেওয়া যাবে।

অভিভাবকদের অসন্তোষ:করোনা পরিস্থিতির কারণে আর্থিক সংকটে থাকা অভিভাবকরা টিউশন ফি মওকুফের দাবি জানিয়ে আসছিলেন। এ নির্দেশনায় তাদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। তারা বলছেন, এটি একটি গোঁজামিলের নির্দেশনা। এতে প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষেরই লাভ হয়েছে। আর্থিক সংকটে থাকা অভিভাকদের জন্য এই নির্দেশনা কাজে আসবে না।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ