1. ashik@amaderbanglarsangbad.com : Staf Reporter : Staf Reporter
  2. akhikbd@amaderbanglarsangbad.com : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. babul6568@gmail.com : অনলাইন ডেক্স : অনলাইন ডেক্স
  4. admin@amaderbanglarsangbad.com : belal :
  5. sv.e.t.a.m.ahovits.k.aya.8.2@gmail.com : danniellearchdal :
  6. sv.e.ta.m.ah.ov.i.tsk.a.y.a82@gmail.com : kimberleybogan9 :
  7. lima@webcodelist.com : Khadizatul kobra Lima : Khadizatul kobra Lima
  8. rkp.jahan@gmail.com : Staf Reporter : Staf Reporter
  9. nimushamim46@gmail.com : Shamim Nimu : Shamim Nimu
  10. abc@solarzonebd.com : Staf Reporter : Staf Reporter
  11. tahershaghata@gmail.com : Abu Taher : Abu Taher
আড়তদার-মিলাররা কারসাজি করে চালের দাম বাড়াচ্ছে: কৃষিমন্ত্রী - আমাদের বাংলার সংবাদ




আড়তদার-মিলাররা কারসাজি করে চালের দাম বাড়াচ্ছে: কৃষিমন্ত্রী

  • সংবাদ সময় : Sunday, 27 December, 2020
  • ৫২ বার দেখা হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক :
কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এমপি বলেছেন, আড়তদার-মিলাররা ‘কারসাজি করে’চালের দাম বাড়াচ্ছে। মিলাররা, আড়তদাররা, জোতদাররা, যারা বাজারকে নিয়ন্ত্রণ করে, তারা চালের দাম বাড়ায়। এবারও তারা সেই কাজ করছে। মৌসুমের সময় তারা এখনও ধান কিনছে এবং ধান ও চালের দাম দুটোই বাড়িয়ে দিয়েছে।
সচিবালয়ে আজ রোববার এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন।
কৃষিমন্ত্রী বলেন, ঘাটতি মেটানোর জন্য সরকার পাঁচ থেকে ছয় লাখ টন চাল বিদেশ থেকে আমদানি করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সরকারি গুদামে চাল কমে গেছে। গত বছর প্রায় ১৩ লাখ টনের মতো খাদ্য ছিল। এ বছর সেটা কমে ৭ লাখ টনে নেমে এসেছে।

কৃষিমন্ত্রী বলন, ভারতসহ অন্য দেশ থেকে চাল আমদানির সুযোগ তৈরি করা হয়েছে। ২৫ শতাংশ শুল্ক দিয়ে বিদেশ থেকে চাল আমদানি করা যাবে। প্রাইভেট সেক্টরকেও সেই সুযোগ দেওয়া হবে। প্রাইভেট সেক্টর এবং সরকার ৫ থেকে ৬ লাখ টন চাল আনতে পারবে। এর বেশি হলে আমরা আর অনুমতি দেব না। যখনই ৬ লাখ টনের এলসি দেওয়া হবে, তারপর আর এলসির সুযোগ দেওয়া হবে না।

সরকার বাজার নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, অতটা চালের ঘাটতি আমাদের নেই। কিন্তু এই সুযোগে মিলাররা নানা রকম কারসাজি করে চালের দাম বৃদ্ধি করার চেষ্টা করছে। আমরা যদি চালের সরবরাহ বিদেশ থেকে নিয়ে আসি, আমার মনে হয় না খুব অসুবিধা হবে।

কৃষিমন্ত্রী জানান, ইতোমধ্যে চাল আসা শুরু হয়েছে। ভারতে সঙ্গে সরকারিভাবে চুক্তি হয়েছে। থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম থেকেও চাল আনার চেষ্টা করা হবে। সব মিলিয়ে সরকারের পূর্ণ উদ্যোগ ও প্রস্তুতি রয়েছে চালের ঘাটতি মেটানোর জন্য। যেহেতু চালের দাম একটু অস্বাভাবিক বেশি হয়েছে, এ জন্য বিশেষ বিবেচনায় প্রাইভেট সেক্টরকে চাল আমদানির সুযোগ দেওয়া হবে। সরকারও চাল আমদানি করে ঘাটতি মেটাবে। যাতে একটি মানুষও কষ্ট না পায়। কেউ যেন ক্ষুধার্ত না থাকে, সেই নিশ্চয়তা আমি দিতে চাই।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ